Valentine’s day

‘হাইওয়ে ধরে হেঁটে চলেছি প্রায় এক ঘন্টা ধরে । এখন রাত প্রায় সাড়ে তিনটে । বেশ ঠান্ডা রাস্তায় । তবে হাঁটছি বলে ঠান্ডাটা মনে হচ্ছে না । মাঝে মাঝে আলোর ঝলকানি দিয়ে তীব্র গতিতে গাড়িগুলো পাশ দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছে । কিছুক্ষণ চেষ্টা করেছিলাম কোনো গাড়ি যদি লিফট দেয় । বৃথা চেষ্টা, এত রাত বলেই হয়তো কেউ দাঁড়াচ্ছে না । অগত্যা হেঁটে চলেছি । সকালের মধ্যে Bangalore পৌঁছতে হবে । আজ ১৪ ই ফেব্রুয়ারী – Valentine’s day । আমার থুড়ি আমাদের বিয়ের পর এই প্রথম Valentine’s day । চিত্রাকে surprise দিতে হবে । ও যে কী খুশি হবে সেটা ভেবেই কোনো ক্লান্তি হচ্ছে না শরীরে । আপনারা হয়তো ভাবছেন বৌকে wish করব বলে এতো রাতে হাইওয়েতে কেন ? – তাহলে তো প্রথম থেকে ঘটনাটা বলতে হয় ।’

‘এক বছর হলো আমি Bangalore এ এসেছি । আগে কলকাতার চাকরি করতাম । আমার best friend সুজয়ের সুত্রে ওদের কোম্পানিতে বেশ ভালো hike পেয়েছিলাম বলে shift করে নিলাম । প্রথমে এসে বেশ bore হতাম । কিছুদিনের মধ্যেই ভেবেছিলাম আবার ফিরে যাব । কিন্তু সেই সময়েই আলাপ হলো চিত্রার সাথে । এক colleague এর মেয়ের জন্মদিনে চিত্রাকে প্রথম দেখলাম । Colleague ই আমাদের পরিচয় করিয়ে দিল । দুজনেই বাঙালী বলে অনেকক্ষণ আড্ডা হলো । তারপর ফোনের মাধ্যমে সম্পর্কটা আরো এগোলো । Weekend গুলোতে দেখা শুরু করলাম । দুই মাসের মধ্যে বুঝতে পারলাম আমরা একজন আরেকজনের জীবনে অপরিহার্য হয়ে পড়েছি । আমিই propose করলাম – ও accept করল । তারপর আরো দুমাস dating করে দুজনেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিলাম । নভেম্বরের শেষের দিকে আমাদের বিয়ে হয়ে গেল । তারপর থেকে এই আড়াই মাস যেন পলকের মধ্যে কেটে গেছে ।’

‘এটাই আমাদের বিবাহিত জীবনের প্রথম Valentine’s day । অনেক প্লান করেছিলাম ওকে ঐদিন platinum love bands গিফট করব । গিফট-টা কেনাও হয়ে গেছে । কিন্তু কপালটাই খারাপ । ফেব্রুয়ারীর দশ নাগাদ Chennai এ আমাদের এক client office এ দরকারী কাজ পড়ে যায় । Boss আরো দুজনের সাথে আমাকেও client site এ পাঠিয়ে দেন । ভেবেছিলাম ১৪ তারিখের আগে ফিরে আসতে পারব । কিন্তু বিধাতা সহায় নন । কাল সন্ধেবেলা চিত্রার সাথে কথা বলে মুষড়ে পড়েছিলাম । দেখালম ও খুব upset । ফোন রাখার আগে যখন ও উদাস হয়ে “I miss you, দীপ ” বলল, মনটা হাহাকার করে উঠলো । মনে হলো এখুনি চাকরি ছেড়ে দিয়ে ফিরে চলে যাই ।’

‘মনখারাপ ছিল, তাই আমার colleague মনপ্রীতকে নিয়ে কাছের একটা pub এ চলে গেলাম drink করতে । সেখানে দেখা হয়ে গেল শ্রীনিবাস স্যারের সাথে । উনি আমাদের অফিসে কাজ করেন – আমাদের সিনিয়র । উনি অন্য কাজে Chennai এসেছিলেন । আজ সকালে ফেরার কথা ওনার । কয়েক পেগ খাবার পর এসে গেল Valentine’s day র প্রসঙ্গ । উনি জিজ্ঞেস করতে আমি আমার দুঃখের কথা বললাম । উনি হেসে বললেন এই ব্যাপারে upset হবার কিছু নেই । মনপ্রীত একদিন আমার কাজ সামলে নেবে । আমি ১৫ ই সকালে আবার চলে আসতে পারি । মনপ্রীত ও আশ্বাস দিল । কিন্তু ফিরব কী করে? তখন রাত ১০ টা । গাড়ি পাবার অসুবিধা । শ্রীনিবাস স্যার বললেন উনি নিজের গাড়িতে নিয়ে যাবেন । সকালে ফেরা বা রাতে ফেরা উনার কাছে একই ।’

‘Dinner করে রওনা হতে ১১ টা বেজে গেল । খুব ইচ্ছে করছিল চিত্রাকে সুখবরটা দিই – কিন্তু surprise দেবার মজাটাই আলাদা । গাড়িটা বেশ জোরে চালাচ্ছিলেন শ্রীনিবাস স্যার । কিন্তু কৃষ্ণাগিরি আসার আগেই control হারিয়ে ধাক্কা মারলেন রাস্তার পাশের একটা গাছের সাথে । মাথায় চোট লেগেছিল – অন্ধকার হয়ে গিয়েছিল কিছুক্ষণের জন্য । জ্ঞান ফিরতেই দেখি শ্রীনিবাস স্যার গাড়ি স্টার্ট করার চেষ্টা করছেন । উনার মাথায়ও চোট লেগেছে । উনি জানালেন গাড়ি স্টার্ট হচ্ছে না । উনি আমাকে বেরিয়ে যেতে বললেন । রাস্তায় কোনো গাড়িতে লিফট নিয়ে Bangalore পৌঁছে যেতে । আমি রাজী ছিলাম না । উনি জোর করেই আমাকে পাঠিয়ে দিলেন । বেরিয়ে পড়লাম । কয়েকটা গাড়ির জন্য বৃথা চেষ্টা করে হাঁটতে শুরু করলাম যদি অন্য কিছুর ব্যবস্থা করা যায় ।’

‘এইবার মনে হচ্ছে একটা উপায় হবে । একটু দুরেই কয়েকটা বাস দাঁড়িয়ে আছে । নিশ্চয়ই toilet break দিয়েছে । দৌড়ে গিয়ে ধরার চেষ্টা করি । পৌঁছনোর আগেই দুটো বাস বেরিয়ে গেল । দাঁড়িয়ে থাকা শেষ বাস টার মধ্যে ঢুকে পড়লাম । সবাই মোটামুটি ঘুমোচ্ছে । শেষ সীটটা ফাঁকা দেখে বসে পড়লাম । মিনিট দুইয়ের মধ্যে বাস ছেড়ে দিল ।’

‘ঘুমানোর চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু উত্তেজনায় কিছুতেই ঘুম এলো না । বাসটা Karnataka তে ঢুকে গেছে । BTM Layout এর কাছেও এসে পড়েছে । আমাকে এবার নামতে হবে । টিকিট কাটা হয় নি । যাক গে – না চাইলে দেব না । আরেকজন যাত্রী নামবে বলে কন্ডাকটরকে জানালো । আমিও পিছনে দাড়িয়ে পড়লাম । বাসটা দাঁড়াতে উনি নামলেন । আমি তারপরই নামছিলাম । কন্ডাকটরটা ভীষণ অভদ্র – আমি রাস্তায় পুরোপুরি না নামার আগেই দরজাটা বন্ধ করে দিল । আরেকটু হলেই হাতটা থেঁতলে যেত ।’

‘আর ৫ মিনিটের হাঁটা পথ । যদিও কুকুরের উৎপাত আছে । তবে আজ তেড়ে এলো না । এপার্টমেন্টের গেটটা বন্ধ । সিকিউরিটিকে ডাকলাম – সাড়া দিল না । গেট টপকাতে হলো । উত্তেজনা একেবারে তুঙ্গে – চিত্রার reaction দেখার জন্য wait করতে পারছি না । আমাদের ফ্লাটের সামনে এসে পড়েছি । কিন্তু এ কী – দরজার সামনে একজোড়া জুতো খোলা । Gents shoes – এ তো আমার জুতো নয় । তার মানে আমার অনুপস্থিতিতে চিত্রা অন্য একজন পুরুষের সাথে রাত কাটাচ্ছে । হে ভগবান – এ তো আমি ভাবতেই পারছি না । যাকে আমি মন-প্রাণ দিয়ে ভালোবাসলাম – সে বিশ্বাসঘাতক । পা থেকে মাটি সরে যাচ্ছে । এইসব দেখার আগে আমার মৃত্যু হলো না কেন ! ঘরের ভিতরে মোবাইল বেজে উঠেছে । দরজার ছিটকানি খোলার শব্দ এলো । আমি আড়াল হয়ে গেলাম । দেখতে চাই কে আছে চিত্রার সাথে । এ আমি কী দেখছি – এতো সুজয় । আমার সবচেয়ে কাছের দুজনের আজ এ কী চেহারা দেখছি । ইচ্ছে করছে রামায়নের সীতার মতো এখুনি পাতাল প্রবেশ করি | ফোনে সুজয়ের কথোপকথন ভেসে আসছে’ – “কল্যাণ – তোকে ফোন করেছিলাম । খুব দরকার – তুই এখনই প্রতিমাকে নিয়ে ready হয়ে থাক । আমি ১৫ মিনিটের মধ্যে তোদের pickup করছি । – – – – খবর ভালো নয় । দীপ ও আমাদের অফিসের শ্রীনিবাস স্যার গাড়ী করে চেন্নাই থেকে ফিরছিল । রাস্তায় accident হয়েছে । আমি চিত্রাকে নিতে এসেছি । আমার পক্ষে ওকে সামলানো মুস্কিল হবে । প্রতিমা পারবে । – – – – MD কে পুলিশ ফোন করেছিল । বলেছে দুজনেই spot dead । ID কার্ড দেখে ওরা সনাক্ত করেছে । বাড়ীর লোকেদের confirm করতে হবে । – – – – – – “

Advertisements

9 thoughts on “Valentine’s day

  1. hai hai bhooter golpo, mathar uppar diye berie jachhilo,

    dubar porlaam, tarpor mone hochhe eta bhooter golpo, thik bolechito.

  2. Maity, eta tor lekha prothom golpo jeta ami porlam. Khub bhalo laglo (karon: chotogolpo with brevity of expression + bhut). Thanks!

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s